প্রথম তালিকায় নাম থাকলেও দ্বিতীয় তালিকায় বাদ,১ নম্বর ওয়ার্ডে নির্দল হিসেবেই লড়ছেন তৃণমূল নেতা শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়


জলপাইগুড়ি :পুরভোটের প্রার্থী তালিকা নিয়ে রাজ্য জুড়েই তীব্র অসন্তোষ তৃণমূলে। বাদ গেল না জলপাইগুড়িও। প্রথম তালিকায় নাম থাকলেও দ্বিতীয় তালিকায় অনেকের‌ই নাম গায়েব! দলের প্রার্থী তালিকা থেকে নাম কাটা যেতেই নির্দল হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সিদ্ধান্ত নিলেন তৃণমূল নেতা মলয় বন্দ্যোপাধ্যায়, যিনি শেখর নামেই বেশি পরিচিত। দলের প্রতীক না পেয়ে পুরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ড থেকে নির্দল হয়েই ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হতে চলেছেন শেখর।

দলের প্রতীক থেকে বঞ্চিত হওয়ায় দলেরই এক নেতার দিকে অভিযোগের আঙুল বিক্ষুব্ধ তৃণমূল নেতা শেখর ব্যানার্জির।

শুক্রবার বিকেলে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা ঘোষিত হয়।‌সেই তালিকায় ১ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম ছিল। জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূলের সভাপতি মহুয়া গোপ‌ও শেখরের নাম‌ ঘোষণা করেন সাংবাদিক সম্মেলনে। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়। শীর্ষ নেতৃত্বের স্বাক্ষর বিহীন তালিকা প্রত্যাহার করে নেওয়ার কথা ঘোষণা করেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। রাতে দ্বিতীয় তালিকা প্রকাশ হ‌ওয়ার পর দেখা যায় জলপাইগুড়ির তালিকা থেকে আর‌ও কয়েকজনের মতো শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়ের‌ও নাম বাদ পড়েছে। দ্বিতীয় তালিকায় শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিবর্তে প্রার্থী করা হয় যুব তৃণমূলের নেত্রী নিলম শর্মাকে।

১ নং ওয়ার্ডে নিজের অনুগামীদের সঙ্গে শেখর ব্যানার্জি।

দ্বিতীয় তালিকা প্রকাশিত হতেই ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে শেখর অনুগামীদের মধ্যে। মঙ্গলবার শেখর বন্দ্যোপাধ্যায় সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিদের বলেন, “দলের সঙ্গে আছি। কিন্তু দলের প্রার্থীর সঙ্গে নেই। ওয়ার্ডের নাগরিকদের আবেদনে সাড়া দিয়ে নির্দল হিসেবে ভোটে দাঁড়াচ্ছি। “ জলপাইগুড়ি শহরে তৃণমূলের পুরোনো মুখেদের অন্যতম শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়। জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেসের প্রথম সভাপতি ছিলেন তিন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন প্রদেশ যুব কংগ্রেসের সভাপতি, তখন থেকেই তিনি নেত্রীর সঙ্গে আছেন বলে শেখরের দাবি। দলের এক প্রভাবশালী নেতা কলকাতায় গিয়ে কলকাঠি নাড়িয়ে তাঁর নাম বাতিল করিয়েছেন বলে অভিযোগ বিক্ষুব্ধ তৃণমূল নেতা শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়ের। ক্ষোভের সঙ্গে শেখর বলেন, “কেন,কী কারণে দ্বিতীয় তালিকায় আমার নাম বাদ পড়ল তা শহরবাসী জানেন। “ শেখর মনে করেন, ওয়ার্ডের মানুষের কাছে দলের প্রার্থীর কোনও গ্রহণযোগ্যতাই নেই। দলের প্রতীক না জুটলেও নিজের জেতার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী আদি তৃণমূলী শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়।

ভিডিও- শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়।

Photo & Video- Reporter.


Leave a Reply

Your email address will not be published.