বিরোধীদের দাবি উড়িয়ে ২৭ ফেব্রুয়ারিই ১০৮ পুরসভার ভোট, মনোনয়ন জমা দেওয়ার জন্য হাতে সময় মাত্র চারদিন! - nagariknewz.com

বিরোধীদের দাবি উড়িয়ে ২৭ ফেব্রুয়ারিই ১০৮ পুরসভার ভোট, মনোনয়ন জমা দেওয়ার জন্য হাতে সময় মাত্র চারদিন!


কলকাতা : রাজ্যের ১০৮টি পুরসভার ভোট নিয়ে বিরোধীদের কোন‌ও আর্জিতেই কান দিল না নির্বাচন কমিশন। বৃহস্পতিবার ১০৮ পুরসভায় ভোটের বিজ্ঞপ্তি ঘোষণা করল রাজ্য নির্বাচন কমিশন। যথারীতি ২৭ ফেব্রুয়ারিই ভোট হচ্ছে। সকাল সাড়ে এগারোটায় সাংবাদিক সম্মেলন করে নির্বাচনের দিনক্ষণ জানিয়ে দেন নির্বাচন কমিশনার সৌরভ দাস।‌ হাতে সময় নেই। তাই বৃহস্পতিবার থেকেই মনোনয়ন পত্র জমা নেওয়ার কথা ঘোষণা করে কমিশন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি। ৩ তারিখ কোনও প্রার্থীর পক্ষেই মনোনয়নপত্র তুলে জমা দেওয়া সম্ভব নয়। ৫ তারিখ সরস্বতী পুজোর ছুটি। ৬ তারিখ রবিবার। কাগজপত্রে মনোনয়ন জমা দেওয়ার জন্য সাতদিন বরাদ্দ করা হলেও সময় পাওয়া যাচ্ছে মাত্র চারদিন।

কোভিড পরিস্থিতির কারণে আসানসোল, শিলিগুড়ি, বিধাননগর ও চন্দননগর পুরসভার ভোট পিছিয়ে ১২ ফেব্রুয়ারি। গণনা ১৪ ফেব্রুয়ারি। এর ১৩ দিন বাদে ১০৮টি পুরসভায় ভোট। সবকটি পুরসভায় একদিনে গণনার দাবি তুলেছিল বিরোধীরা। যথারীতি কানে তোলেন নি রাজ্য নির্বাচন কমিশনার। বিভিন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বিভিন্ন রাজ্যে পৃথক পৃথক দিনে ভোট নেওয়া হলেও গণনা হয় এক‌ই দিনে। এক রাজ্যের ফলের প্রভাব যাতে আরেক রাজ্যের ভোটে প্রভাব না ফেলে, এই জন্যই এক‌ই দিনে গণনার ব্যবস্থা করে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। কিন্তু বিরোধী দলগুলির শত আবেদনেও সেই রাস্তায় হাঁটতে নারাজ সৌরভ দাস।

রাজ্য নির্বাচন কমিশনার সৌরভ দাস। বিরোধীদের অভিযোগ ইনি নিরপেক্ষ নন।

প্রচারে কোভিডের কারণে বিধিনিষেধ বলবৎ থাকলেও কিছু নিয়ম শিথিল করেছে কমিশন। খোলা জায়গার জনসভায় আড়াইশো থেকে বাড়িয়ে সর্বোচ্চ ৫০০ জন করা হয়েছে। অডিটোরিয়ামে দুশো লোকের বেশি জমায়েত করা যাবে না। ইভিএমে ভোট নেওয়া হলেও ভিভি প্যাটের বালাই নেই। পুরভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনীর মোতায়েন নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেয় নি। বিষয়টি পরে ভেবে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার। বিরোধীরা দাবি জানালেও কলকাতার পুরভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করে নি কমিশন। চার কর্পোরেশনের ভোটেও কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকছে না। কাজেই ১০৮ পুরসভার ভোটেও কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের সম্ভাবনা প্রায় নেই বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। তবে প্রত্যেকটি বুথে সিসি ক্যামেরা থাকবে বলে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকেই ১০৮ পুরসভায় আদর্শ আচরণবিধি কার্যকর হয়ে গেল বলে জানিয়ে দিয়েছে রাজ্য নির্বাচন কমিশন। এদিন‌‌ই আইনশৃঙ্খলা নিয়েজেলাশাসক ও পুলিশ সুপারদের সঙ্গে বৈঠক করেন রাজ্য নির্বাচন কমিশনার। গণনার দিন না জানালেও ৮ মার্চের মধ্যে ১০৮ পুরসভার যাবতীয় নির্বাচনী প্রক্রিয়া শেষ করে ফেলবে কমিশন।

File Photos.


Leave a Reply

Your email address will not be published.