সিবিআইয়ের ডাক এড়াতে হাইকোর্টে অনুব্রত, এরপরেই সটান এস‌এসকেএমের উডবার্নে


কলকাতা : শিয়রে সিবিআই। গ্রেফতার এড়াতে বুধবার হাইকোর্টের দ্বারস্থ বীরভূম জেলা তৃণমূলের সভাপতি অনুব্রত মন্ডল, যাকে কেষ্ট নামেই চেনে বাংলা। ভোট পরর্বতী হিংসা মামলায় অনুব্রতকে জেরা করতে চায় সিবিআই। যেদিন আদালতে গেলেন ঠিক সেইদিনই অসুস্থ হয়ে পড়লেন বীরভূমের দোর্দন্ডপ্রতাপ কেষ্ট! বৃহস্পতিবার হাইকোর্টে মামলাটির শুনানি হ‌ওয়ার কথা। শুনানিতে‌ অনুব্রতর হাজির থাকার কথা থাকলেও একদিন আগেই কলকাতা চলে আসেন অনুব্রত মন্ডল। তবে নেতাজি ইন্ডোরে দলের সাংগঠনিক নির্বাচনে যোগ দিতে নয় অনুব্রত সোজা চলে যান এস‌এসকেএমে। জানা গেছে শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা ও উচ্চ রক্তচাপের কারণে এস‌এসকেএমের উডবার্ন ওয়ার্ডে ভর্তি করে নেওয়া হয়েছে তাঁকে।

বিজেপি কর্মী খুনের মামলায় অনুব্রতকে জেরা করতে চায় সিবিআই।

গত ২ মে, ভোটের ফল ঘোষণার দিন বীরভূমের ইলামবাজারে বিজেপি কর্মী গৌরব সরকারকে পিটিয়ে খুন করা হয়। ভোট পরবর্তী হিংসা মামলা সিবিআইয়ের হাতে যাওয়ার পর এই ঘটনায় অভিযুক্ত কয়েকজনকে গ্রেফতার‌ও করা হয়েছে। আর‌ও কয়েকজন তৃণমূল নেতাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে সিবিআই। এবার বীরভূম জেলা তৃণমূলের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে জেরা করতে চান কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকেরা। সিবিআইয়ের সমন পাওয়ার পর থেকেই গড়িমসি শুরু করে দেন অনুব্রত। শরীর খারাপের অজুহাতে দু’বার ডাক এড়িয়েছেন। আগামী শুক্রবার‌ দুপুরে অনুব্রতকে ফের তলব করে সিবিআই।

কেষ্টর আশঙ্কা জেরার মুখোমুখি হলে তাঁকে গ্রেফতার করে হেফাজতে নিয়ে নিতে পারে সিবিআই। সেই ভয়েই বুধবার কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন বীরভূম তৃণমূলের দোর্দন্ডপ্রতাপ এই নেতা। অনুব্রত মণ্ডলের আইনজীবী আদালতকে জানিয়েছেন, তাঁর মক্কেল তদন্তের কাজে সিবিআইকে সবরকমের সহযোগিতা করতে প্রস্তুত। কিন্তু তাঁকে গ্রেফতার করা যাবে না। শুক্রবার অনুব্রতকে ডেকেছে সিবিআই। বৃহস্পতিবার জরুরী ভিত্তিতে হাইকোর্টে মামলাটির শুনানি হ‌ওয়ার কথা। কিন্তু আদালতের নির্দেশের অপেক্ষায় বসে না থেকে সোজা এস‌এসকেএম-এর উডবার্ন ওয়ার্ডে কেষ্টদা।

Photo Credit- Official FB page of Anubrata Mandal. Feature and other image is symbolic.


Leave a Reply

Your email address will not be published.