বালুচিস্তানে ফের আক্রান্ত পাক সেনাবাহিনী, বিদ্রোহীদের হামলায় নিহত ১০ জ‌ওয়ান


গুরুত্বপূর্ণ চিন-পাকিস্তান করিডোরে ঝটিকা হামলা বিদ্রোহীদের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বালুচিস্তানে ফের বড় মূল্য দিল পাক সেনা। দক্ষিণ-পশ্চিম বালুচিস্তানের কেচ এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোরে বালুচ বিদ্রোহীদের অতর্কিত হামলার মুখে কমপক্ষে ১০ সেনা জ‌ওয়ানের  মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাটি বুধবার রাতে ঘটলেও দেরিতে স্বীকার করেছে পাক সামরিক কর্তৃপক্ষ। করিডোরের একটি চেকপোস্টে বিদ্রোহীরা হামলা চালায় বলে সেনা সূত্রে জানা গেছে। দুই পক্ষের গোলাগুলির লড়াইয়ে ১০ সৈন্যের প্রাণ যাওয়ার খবর সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছে সেনাবাহিনী। সেনারা পাল্টা জবাব দিলে বিদ্রোহীদের একজন নিহত ও অনেকে আহত হয়েছে বলে সামরিক কর্তৃপক্ষের দাবি। তবে সেনাবাহিনীর তরফে হতাহতের সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে বলে পাকিস্তানের রাজনৈতিক মহলের অনুমান। কেননা, এই ধরণের পরিস্থিতিতে হতাহতের প্রকৃত  সংখ্যা চেপে যাওয়া পাক সেনাবাহিনীর বহু দিনের অভ্যেস।

চিন-পাকিস্তন অর্থনৈতিক করিডোর।

ঘটনাস্থল পাকিস্তান-ইরান সীমান্তের কাছাকাছি এবং বেলুচিস্তান প্রদেশের রাজধানী কোয়েটা থেকে ৬০০ কিলোমিটার দক্ষিণে। চিন-পাকিস্তান  অর্থনৈতিক করিডোরকে কৌশলগতভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে ইসলামাবাদ ও বেজিং উভয়েই। পশ্চিম চিনের কাশগড় থেকে শুরু হয়ে এই বিশাল রাস্তা শেষ হয়েছে বালুচিস্তান প্রদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমের গোয়াদর বন্দরে। গোয়াদর বন্দরের মালিকানা  সম্পূর্ণভাবেই চিনের। কাজেই এই করিডোরের নিরাপত্তা পাকিস্তান সরকারের বিরাট মাথা ব্যথার কারণ। আবার বালুচ বিদ্রোহীদের লক্ষ্য‌ই হল দুর্গম‌ পার্বত্য এলাকার মধ্য দিয়ে যাওয়া করিডোরে বারংবার হামলা চালিয়ে পাক সেনাবাহিনীকে ব্যতিব্যস্ত করে তোলা।

৭৫ বছরেও বালুচদের বশে আনতে ব্যর্থ পাকিস্তান।

পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকেই বালুচদের বিদ্রোহ সরকারের গলার কাঁটা। বালুচ জাতিগোষ্ঠীর মানুষ পাকিস্তান রাষ্ট্রের অস্তিত্ব‌ই স্বীকার করে না। অনেক দমন-পীড়নের পরেও বালুচিস্তানে বিদ্রোহের আগুন নেভাতে পারে নি পাকিস্তান সরকার। নিরন্তর সেনা অভিযানের পরেও বিদ্রোহীদের ঠান্ডা করা যায় নি। বালুচিস্তান লিবারেশন আর্মি ( বিএল‌এ ) ও বালুচ ন্যাশনালিস্ট আর্মি ( বিএন‌এ ) নামে দুটি পৃথক সংগঠন সশস্ত্র সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে। পাকিস্তান সামরিক বাহিনীর দেওয়া হিসেব অনুযায়ী ২০০০ সাল থেকে বালুচিস্তানে নিহত পাক সেনার সংখ্যা ১৬৭৬ জন। সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী সংঘাতে মৃত বেসামরিক জনগণের সংখ্যা ৪৩৬৯। যদিও প্রকৃত চিত্র ভয়াবহ। গত বাইশ বছরে বালুচিস্তান প্রদেশে সেনাবাহিনীর হাতে গুম হয়ে যাওয়া মানুষের সংখ্যা লক্ষ ৪০ হাজারের‌ও বেশি।

Photo Credit- Reuters, Al Jazeera and Twitter.


Leave a Reply

Your email address will not be published.