দলে নতুন মাত্রেই ‘ ট্রোজান হর্স ‘ নন, তথাগতর বক্তব্য খন্ডন করলেন স্বপন দাশগুপ্ত


নতুন-পুরোনো সবাইকে নিয়েই মানুষের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দিলেন বিজেপির তাত্ত্বিক নেতা

পলিটিক্যাল ডেস্ক : তথাগত রায়ের মতো পাইকারি ‌দরে তৃণমূল থেকে দলে আসা সকলের উপর ট্রোজান হর্সের স্টিকার মারতে রাজি নন সাংসদ ডঃ স্বপন দাশগুপ্ত । মুকুল রায়কে ট্রোজান হর্স হিসেবে কটাক্ষ করে শনিবার ট্যুইট করেছিলেন তথাগত রায় । তথাগতবাবু ট্যুইটে লিখেছিলেন, ট্রয়ের ঘোড়া সেজে বিজেপির ভেতরে ঢুকে দলের সব কথা জেনে নিয়ে মমতার কাছে ফিরে গিয়েছেন মুকুল । দলে এই রকম আরও কত ট্রয়ের ঘোড়া মুকুল রায় রেখে গেলেন , তা নিয়েও নিজের ট্যুইটারে সংশয় প্রকাশ করেন প্রাক্তন রাজ্যপাল।

সোমবার তথাগত রায়ের নাম উল্লেখ না করে তাঁর বক্তব্য খন্ডন করে পাল্টা ট্যুইট করলেন স্বপন দাশগুপ্ত । তারকেশ্বর থেকে ভোটে দাঁড়িয়ে পরাজিত হয়েছেন বিজেপির এই তাত্ত্বিক নেতা । পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি ক্ষমতায় এলে স্বপনবাবুকে মন্ত্রিসভায় বড় পদ দেওয়ার কথা ভেবেছিলেন মোদী-শাহ । মনোনয়ন পেশের আগে রাজ্যসভার সদস্য পদে ইস্তফা দিয়েছিলেন স্বপন দাশগুপ্ত । সম্প্রতি স্বপনবাবুকে ফের মনোনীত সদস্য করে রাজ্যসভায় পাঠিয়েছে বিজেপি। পেশায় সাংবাদিক উচ্চ শিক্ষিত এই মানুষটিকে যথেষ্টই কদর করেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব।

ডঃ স্বপন দাশগুপ্তের ট্যুইট ।

নিজের ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে স্বপন দাশগুপ্ত লেখেন, ‘ ২০১৯ এর মে মাসের পর যারাই বিজেপিতে এসেছেন , তাঁদের সকলকে ট্রোজান হর্স হিসেবে দাগ লাগিয়ে দেওয়া ভুল । ভোটের সময় নবাগতদের অনেকেই দলের জন্য আন্তরিক ভাবে খেটেছেন । কোনও অবস্থাতেই দলের ভেতরে তাঁদের অবাঞ্ছিত বোধ করানো ঠিক নয় । রাজনীতি বাদ দেওয়ার খেলা নয় । সহযোগিতা দিয়ে সকলের পাশে থেকে নতুন নেতা গড়ে তুলতে হয় ‘ । তবে যাঁরা স্রেফ ব্যক্তিগত ধান্ধা হাসিল করার মাধ্যম হিসেবে দলকে ব্যবহার করেন তাঁদের বিদায়ে দুঃখিত নন স্বপন দাশগুপ্ত । এই প্রজাতির নেতাদের জন্য দরজা সবসময় খোলাই আছে বলে মনে করেন তিনি । স্বপনবাবুর কথায় , চাইলে অন্য রাস্তা দেখতেই পারেন তাঁরা ।

মুকুল রায়ের দলত্যাগের ধাক্কায় যখন বেসামাল দেখাচ্ছে রাজ্য বিজেপিকে , তখন স্থির ও দৃঢ় চিত্তে নতুন-পুরোনো সবাইকে নিয়েই মানুষের সামনে এগিয়ে যাওয়ার কথাই বললেন স্বপন দাশগুপ্ত । মুকুল রায়ের মতো হেভিওয়েট নেতার দলত্যাগ উদ্বেগের হলেও ঘটনা থেকে উপযুক্ত শিক্ষা নিয়ে দলের এগিয়ে যাওয়াই উচিত বলে মনে করেন তিনি । হার ও নেতাদের ‌দলত্যাগের ধাক্কায় খোলসে গুটিয়ে না গিয়ে ২ কোটি ২৮ লক্ষ ভোটকে পাথেয় করে আরও বেশি করে মানুষের সামনে পৌঁছে যাওয়ার‌ই পরামর্শ দিচ্ছেন এই জাতীয়তাবাদী তাত্ত্বিক নেতা ।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *