মোদীর বৈঠক এড়িয়ে শাহ-ধনখড়-রাজনাথের নিশানায় মমতা , বিঁধলেন নাড্ডা এবং শুভেন্দুও


নাগরিক ওয়েব ডেস্ক : শুক্রবার কলাইকুন্ডায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ডাকা পর্যালোচনা বৈঠকে গরহাজির থাকায় রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় থেকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর নিশানায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । বৈঠক এরিয়ে যাওয়ায় মমতার সমালোচনা করলেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ‌ও । দলীয় পর্যায়েও মমতাকে বিঁধতে ছাড়ে নি বিজেপি । দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা এবং রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীও মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করেছেন । ঘূর্ণিঝড় ইয়াস পরবর্তী পুনর্গঠন সংক্রান্ত বিষয়ে পর্যালোচনা করতেই পশ্চিম মেদিনীপুরের কলাইকুন্ডায় বৈঠক ডেকেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। 

বৈঠকে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের পাশাপাশি শুভেন্দু অধিকারী ও কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী উপস্থিত থাকবেন , জানার পরেই নবান্ন থেকে আপত্তি উঠতে শুরু করে । কোন অধিকারে শুভেন্দু প্রশাসনিক বৈঠকে থাকবেন , এমন‌ও প্রশ্ন তোলে তৃণমূল শিবির । প্রতিক্রিয়ায় রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব জানায় , ইতিমধ্যেই শুভেন্দু অধিকারীকে রাজ্য বিধানসভার বিরোধী দলনেতার স্বীকৃতি দিয়েছেন অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় । সাংবিধানিক পদমর্যাদা অনুযায়ী বিধানসভার বিরোধী দলনেতা রাজ্য মন্ত্রিসভার ক্যাবিনেট মন্ত্রীর সমান । 

এই পরিস্থিতিতে শেষ পর্যন্ত মমতা প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে থাকেন কিনা সেই দিকে নজর ছিল রাজনৈতিক মহলের ।  কলাইকুন্ডা এয়ার বেসে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে তাঁর হাতে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা তুলে দিলেও বৈঠক এড়িয়ে যান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । দিঘায় প্রশাসনিক বৈঠকে যোগ দেওয়ার তাড়া থাকাতেই তিনি প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে যোগ দিতে পারেন নি বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী । কলাইকুন্ডা থেকে বেরোনোর আগে মোদীর কাছে বিশ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ দাবি করে আসেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । 

দিঘায় প্রশাসনিক মিটিংয়ের কথা বলে কলাইকুন্ডা থেকে বেরিয়ে যান মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রী দিঘায় প্রশাসনিক বৈঠকের কারণ দেখালেও একে নিছকই মোদীর বৈঠক এড়ানোর অজুহাত হিসেবেই দেখছে গেরুয়া শিবির । শুক্রবার সন্ধ্যা থেকেই ট্যুইটারে ক্ষোভ ঝাড়তে শুরু করেন ধনখড় থেকে অমিত শাহ , রাজনাথ সিংহ থেকে জেপি নাড্ডা এবং পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী । কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ট্যুইটারে লেখেন, ‘ মুখ্যমন্ত্রীর আচরণ দুর্ভাগ্যজনকভাবে নিম্ন মানের । ঘূর্ণিঝড়ের কারণে অজস্র সাধারণ নাগরিক ক্ষতিগ্রস্ত । এখন তাদের সহায়তা করার সময় । কিন্তু দিদি যে জনগণের স্বার্থের ওপরেও নিজের অহংবোধকে স্থান দেন,  আজকের সঙ্কীর্ণ  আচরণেই তা প্রতিফলিত ‘ ।  

                                     অমিত শাহর ট্যুইট ।

রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় নিজের অফিসিয়াল ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে লেখেন , ‘ ঘূর্ণিঝড় ইয়াস এর ক্ষয়ক্ষতি পর্যালোচনা বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর আধিকারিকদের অনুপস্থিতি আসলে সংবিধান ও যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাকেই বয়কট । এই পদক্ষেপের কারণে জাতীয় বা রাজ্য কার‌ও স্বার্থ‌ই রক্ষিত হয় নি ‘। 

রাজ্যপালের ট্যুইট ।
               

রাজ্য বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী ট্যুইটারে লেখেন, ‘ আজ ভারতের দীর্ঘদিন‌ ধরে লালিত সহযোগিতামূলক যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোর জন্য একটি কালো দিন । মুখ্যমন্ত্রী যে রাজ্যের সাধারণ মানুষের দুঃখ-দুর্দশার প্রতি সংবেদনশীল নন আর‌ও একবার তা প্রমাণ করলেন । 

শুভেন্দু অধিকারীর ট্যুইট ।

বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা তো বাংলায় ট্যুইট করে মুখ্যমন্ত্রীর আচরণের সমালোচনা করেন । বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের ভেতরে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহের সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সুসম্পর্কের কথা সর্বজনবিদিত । রাজনাথ সিংহ‌ও ট্যুইট করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিঁধতে ছাড়েন নি । কলাইকুন্ডায় দেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর আচরণ মর্মস্পর্শী বলে মনে করেন রাজনাথ । 

জেপি নাড্ডার ট্যুইট ।
রাজনাথ সিংহের ট্যুইট ।

শাহ-নাড্ডা-রাজনাথ ,  দোসরা মে নির্বাচন পর্ব মেটার পর শুক্রবার‌ই প্রথম দিল্লির গেরুয়া শিবির থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে একযোগে তীব্র আক্রমণ ধেয়ে এল ।  বিজেপির সমালোচনার জবাব দিতে দেরি করে নি তৃণমূল নেতৃত্ব । যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো সম্পর্কে মমতার কাছ থেকেই বিজেপি নেতাদের শেখা উচিত বলে দাবি করেন তৃণমূলের রাজ্যসভা সদস্য সুখেন্দুশেখর রায় । 




 


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *