পৃথক কামতাপুর রাজ্যের দাবিতে আন্দোলনে কেপিপি, ধূপগুড়িতে অবরোধ


ধূপগুড়ি : উত্তরবঙ্গে পৃথক রাজ্যের দাবি অনেক দিনের। উত্তরবঙ্গ থেকে নির্বাচিত বিজেপির জনপ্রতিনিধিদের‌ও কেউ কেউ পৃথক রাজ্যের দাবিতে সোচ্চার। বৃহস্পতিবার পৃথক রাজ্যের দাবিতে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন স্থানে পথ‌ অবরোধ করল কামতাপুর পিপলস পার্টি ( ইউনাইটেড)। কামতাপুর রাজ্য ও কামতাপুরি ভাষার সরকারি স্বীকৃতি চান কেপিপি ( ইউনাইটেড)-এর সদস্য-সমর্থকেরা।

ধূপগুড়ি শহরের স্টেশন মোড়ে কেপিপি ( ইউ)-র কর্মী-সমর্থকেরা জাতীয় সড়ক অবরোধ করলে বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে চলে আসে। অবরোধকারীদের থেকে পুলিশের সংখ্যা‌ই বেশি ছিল। মিনিট দশেক অবরোধ চলার পর পুলিশের অনুরোধে অবরোধ তুলে নেন কেপিপির লোকেরা। দশ মিনিটের অবরোধের জেরেই ব্যস্ত জাতীয় সড়কের দুই দিকে সারি দিয়ে গাড়ি দাঁড়িয়ে পড়ে।

বাম আমলে কামতাপুর আন্দোলন পর্বে জলপাইগুড়ি জেলার ধূপগুড়ি এলাকায় বেশ প্রভাব ছিল কেপিপির। যদিও পরে অতুল ও নিখিল- এই দুই গোষ্ঠীতে ভাগ হয়ে যায় দল। কেপিপি-ইউনাইটেডের জেলা সভাপতি দুনদেশ্বর রায় বলেন, ”আমাদের আসল দাবি পৃথক রাজ্য। এছাড়াও কামতাপুরি ভাষা ও সংস্কৃতি মর্য্যাদা রক্ষার একটা বিষয় তো আছেই। কামতাপুরি ভাষার সাংবিধানিক স্বীকৃতি চাই।”

কামতাপুর রাজ্যের দাবি মূলতঃ উত্তরবঙ্গের রাজবংশী জনগোষ্ঠীর ভেতর থেকে উঠে এসেছে। রাজবংশীরা উত্তরবঙ্গের ভূমিপুত্র। রাজবংশী জনগোষ্ঠীর একটি অংশ মনে করে, একমাত্র পৃথক রাজ্যের মাধ্যমেই তাদের উপর যে বঞ্চনা চলছে তার অবসান সম্ভব। তবে রাজবংশীদের আরেকটি অংশ চায় পৃথক গ্রেটার কোচবিহার রাজ্য। দার্জিলিং পাহাড়কে ঘিরে গোর্খাদের পৃথক রাজ্যের দাবি তো আছেই।‌

ছোট ছোট রাজ্যে বিজেপির আপত্তি নেই। উত্তরবঙ্গ বঞ্চনার ধারাবাহিক বঞ্চনার শিকার বলে এই অঞ্চলের বিজেপি নেতাদের অভিযোগ। আঞ্চলিক বৈষম্যের নিরসনে পৃথক উত্তরবঙ্গ রাজ্যের যৌক্তিকতা আছে- দিনকয়েক আগে এমন‌ই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন শিলিগুড়ির বিজেপি বিধায়ক ‌শঙ্কর ঘোষ।‌‌‌‌‌‌‌

ভিডিও-

Photo and Video- Reporter.


Leave a Reply

Your email address will not be published.