নেতায় নেতায় সৌজন্য ধুয়ে কি আমরা জল খাব ?


বামনেতায় , ডাননেতায় কত পিরিত ! নেতাদের মহাপ্রয়াণ হলে জানতে পারি আমরা । নেতায় নেতায় ভাব খুবই ভাল কথা । কিন্তু নিচুতলায় পার্টিতে পার্টিতে খুনোখুনি । মারামারি। মামলা । হামলা । তার বেলা ? সে সব বন্ধ না হলে নেতাদের এই মাখামাখি ,গলাগলির গল্প ধুয়ে কি জল খাবে জনগণ ? লিখলেন উত্তম দেব –

সংসদীয় গণতন্ত্রে এক‌ই ছাদের নিচে শাসক ও বিরোধী পক্ষকে মুখোমুখি বসতে হয় । মুখোমুখি বসলে শত্রু-মিত্রে মুখ দেখাদেখি হবেই । মানুষে-মানুষে রোজ মুখ দেখাদেখি হলে পারস্পরিক সৌহার্দ্য-সৌজন্য আপনা থেকেই চলে আসে । এই জন্য‌ই বলা হয় পরিষদীয় রাজনীতিতে শাসক-বিরোধী পরস্পরের শত্রু নয় প্রতিপক্ষ মাত্র। রাজ্যের পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়নমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় সদ্য প্রয়াত হয়েছেন। রাজনীতিতে হেভিওয়েট বলতে যা বোঝায়, পশ্চিমবঙ্গে তিনি ছিলেন তাই। ছাত্র রাজনীতির মাধ্যমে উত্থান । বাহাত্তরে সিদ্ধার্থশঙ্কর রায়ের মন্ত্রিসভায় মাত্র ছাব্বিশ বছর বয়সে মন্ত্রী হয়েছেন, তার উপর আবার ওই বয়সেই পুলিশ ও তথ্যসংস্কৃতির মতো গুরুত্বপূর্ণ দফতর সামলেছেন। সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের গুণমুগ্ধদের অনেকেই মনে করেন, মানুষটার মুখ্যমন্ত্রী হ‌ওয়ার যোগ্যতা ছিল । সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে দলমত নির্বিশেষে সবাই শ্রদ্ধা জানিয়েছেন । বিরোধীদলের নেতারাও তাঁর সম্পর্কে বলতে গিয়ে স্মৃতিকাতর হয়ে পড়েছেন। সব ছাপিয়ে উঠে এসেছে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের সৌজন্যবোধের কথা ।

গণতন্ত্রে শাসক-বিরোধীতে খাতির খুব ভাল জিনিস । ডানে-বামে নেতায় নেতায় খাতিরের অনেক গল্প মুখে মুখে ঘোরে । মুখ্যমন্ত্রী বিধানচন্দ্র রায় নিজের গাড়িতে তুলে বিরোধীনেতা জ্যোতি বসুকে চাট্টি লুচি খাইয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থশঙ্কর রায় বন্ধু জ্যোতির বাড়িতে গিয়ে হাঁড়ির খবর নিয়ে আসতেন । মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের রেস্তোরাঁর বিল মিটিয়েছেন । মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নবান্নে ডেকে বিমান বসুদের সামনে ফিসরোলের প্লেট এগিয়ে দিয়েছেন । প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী মমতার বাসায় একবার মালপোয়া খেতে এসেছিলেন বলে খবর বেরিয়েছিল। অর্থাৎ নেতায়-নেতায় মালপোয়া ভাগাভাগি করে খাওয়ার চল বেশ ভালোই আছে রাজনীতিতে।

ডঃ বিধান রায় ও জ্যোতি বসু : সৌজন্যের রাজনীতি শেষ পর্যন্ত কী দিয়েছে বাংলাকে ?

খবরের কাগজের পাতায় , চ্যানেল-পোর্টালের স্ক্রিনে শাসক-বিরোধী নেতায়নেতায় নৈকট্যের গল্প শুনতে আমাদের দারুণ লাগে । শুধু প্রশ্ন একটাই – উপরতলায় নেতায়-নেতায় এত সৌজন্য , এত খাতিরদারি থাকার পরেও নিচের তলায় হানাহানি কেন ? জ্যোতি বসুর প্রতি বিধান রায়ের এমন পুত্রসম স্নেহ ! তারপরেও ঊনষাটের ৩১ অগাষ্ট কলকাতায় বামপন্থীদের খাদ্য আন্দোলনের মিছিলে সহিংসতা এড়ানো যায় নি । সেদিন পুলিশের গুলি ও‌ বেধড়ক পিটুনতে রাজপথে মৃত্যু হয়েছিল যাদের তাদের সবাই ছিলেন গ্রামের দরিদ্র মানুষ । তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী-বিরোধীনেতায় এত‌ মধুর সম্পর্কের পরেও গ্রাম থেকে গরীবগুর্বোদের ধরে এনে কলকাতার রাস্তায় মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হয়েছিল কেন ? সিদ্ধার্থশংকর রায় ও জ্যোতি বসু দুই বন্ধু । তুই-তোকারির সম্পর্ক । অথচ আজ‌ও ৭২ থেকে ৭৭ সিদ্ধার্থ জামানায় এগারোশো কমরেড খুন হয়ে যাওয়ার কাঁদুনে গেয়ে শোকে ফেসবুক ভাসান সিপিএমের প্রবীণেরা । খুন হ‌ওয়া এই এগারোশো কমরেড কারা ? গ্রাম-মফস্বল- মহানগর কলকাতার অলিগলিতে মাথা গুঁজে থাকা নিম্নবিত্ত-নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে ছিল এরা সবাই । জ্যোতি-সিদ্ধার্থের সখ্যতা দিয়ে তো ১৯৭০ এর ১৭ মার্চ বর্ধমানের সাঁইবাড়ি হত্যাকাণ্ড‌ও রোধ করা যায় নি । মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর ঘরে ঢুকতে কংগ্রেসনেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের অনুমতি পর্যন্ত লাগত না , এমন‌ই ছিল দু’জনের সম্পর্কের বন্ধন । সোমেন মিত্রের সঙ্গেও সিপিএম নেতাদের খাতির ছিল দেখার মতো । কংগ্রেস ও সিপিএমের শীর্ষ নেতাদের এমন মহব্বতের পরেও ৩৪ বছরের বাম শাসনে সিপিএমের হাতে খুন‌ হয়ে যাওয়া সমর্থকদের একটা বিশাল তালিকা আছে কংগ্রেস নেতাদের কাছে । বামেদের হাতে মৃত এই কংগ্রেসীরা কারা ? গ্রামের চাষীর ঘরের ছেলে। প্রাইমারি স্কুলের মাস্টারের বাপমরা ভাইপো। শহুরে নিম্নমধ্যবিত্ত চাকুরিজীবী বাপের বেকার সন্তান। কংগ্রেসীদের রক্তে হাত রাঙানো সিপিএম করা ছেলেরাই বা কারা ছিল ? পার্টির নামে কসম খেয়ে নিজের প্রতিবেশীকেই মেরেছে এরা ।

উপরতলায় নেতায়-নেতায় মাখামাখি নিচুতলায় রাজনৈতিক অশান্তি তো বন্ধ করতে পারল না।

বরাহনগর-কাশীপুর , সাঁইবাড়ি , ১৯৯৩ এর একুশে জুলাইয়ের কলকাতা, নানুর , ছোট আঙারিয়া , কেশপুর , নেতাই , নন্দীগ্রাম । বামে হোক কি ডানে , মরেছে কারা ? সাধারণ মানুষ । মেরেছে কারা ? সাধারণ মানুষ । পার্টির নাম করে সাধারণ মানুষকে পরস্পরের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিয়ে তোমরা নেতারা সৌজন্যের রাজনীতি মারাও ? এক‌দলের শীর্ষ নেতা মারা গেলে আরেক দলের শীর্ষ নেতা কেঁদে বুক ‌ভাসাও ।‌ তোমাদের মধ্যে এত ভালবাসাবাসি থাকলে বাংলার রাজনীতিতে এত হিংসা , মারামারি , খুনোখুনি কেন ? এক-একটা ভোটের আগে-পরে কত লোক খুন হয় রাজ্যে ! নিজেরা নিরাপদ দূরত্বে বসে থেকে ভোটের দিন কর্মী-সমর্থকদের হুলিয়ে দাও তোমরা নেতারা । বোমা বাঁধতে গিয়ে দলের লোকেরা বিস্ফোরণে দলা পাকিয়ে মরে , আর‌ও হতভাগাদের হাত-পা উড়ে যায়। বাকি জীবন লুলা হয়ে কাটায়। রাজনৈতিক মামলায় জেরবার হয়ে শেষ হয়ে যায় কত পরিবার। উকিলের খরচ জোগাতে গিয়ে জমি-বাড়ি পর্যন্ত বেচে দেয়। পশ্চিমবঙ্গ‌ই একমাত্র রাজ্য যেখানে পছন্দসই প্রতীকে ভোট দেওয়ার অপরাধে মানুষকে বাস্তুচ্যুত হতে হয় । জমির ধান কাটার শ্রমিক পায় না গ্রামে বিরোধী দল করা গেরস্ত চাষী। রাতের অন্ধকারে বিপক্ষ দলের সমর্থকের পুকুরে ফলিডল ফেলে দেওয়া , ছোট দোকানঘরটি পুড়িয়ে ফেলে তাকে ভাতে মারার ব্যবস্থা করা এই রাজ্যে খুব স্বাভাবিক ঘটনা। প্রবাদ আছে রাজায় রাজায় যুদ্ধ করে , উলুখাগড়ায় মারা পড়ে ।‌ বাংলায় নেতায় নেতায় সেটিং চলে কর্মী-সমর্থকেরা খুনোখুনি করে মরে। কোনও একজন হেভি‌ওয়েট নেতার পরিণত বয়সে স্বাভাবিক মৃত্যু হলে মিডিয়ায় পক্ষে – বিপক্ষের জীবিত নেতাদের মধ্যে সৌজন্যের ন্যাকামি দেখে হেসে বাঁচি না। সমাজের নিচুতলায় ‌রাজনৈতিক কারণে মানুষে মানুষে হানাহানি বন্ধ না হলে এই সৌজন্য ধুয়ে আমরা জল খাবো ?

Photo Courtesy- PTI , FB and HT


Leave a Reply

Your email address will not be published.