জিন্নাহর মূর্তি ধূলিসাৎ বালুচিস্তানে,সামাজিক মাধ্যমে বালুচদের প্রবল উল্লাস


মহঃ আলি জিন্নাহকে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের দালাল বলে মনে করে বালুচরা। বালুচদের অভিযোগ,জিন্নাহ সৃষ্ট পাকিস্তান তাদের সকল দুর্দশার কারণ । তাই জিন্নাহর মূর্তি গুঁড়িয়ে দিয়েছে বালুচিস্তান লিবারেশন আর্মি।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : নিজের জন্ম দেওয়া দেশেই ধূলিসাৎ জিন্নাহ সাহেব । পাকিস্তানের বালুচিস্তান প্রদেশের বন্দরনগরী গোয়াদারে মহম্মদ আলি জিন্নাহর বিশাল একটি মূর্তি গুঁড়িয়ে মাটিতে মিশিয়ে দিল বালুচ স্বাধীনতাকামীরা । রবিবার সকাল ৯টা ২০ নাগাদ বিস্ফোরণে উড়িয়ে দেওয়া হয় পাকিস্তানের জাতির পিতার পূর্ণাবয়ব মূর্তিটি । এই বছরের ‌জুনেই গোয়াদার শহরের মেরিন ড্রাইভ এলাকার হাই সিকিউরিটি জোনে মূর্তিটি স্থাপন করা হয়েছিল । ঘটনার দায় স্বীকার করেছে বালুচ লিবারেশন আর্মি । বি‌এল‌এ’র সদস্যরা পর্যটক সেজে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছিল বলে গোয়াদার বন্দর নগরীর ডেপুটি কমিশনার অবসরপ্রাপ্ত মেজর আব্দুল কবির খান পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন । ঘটনায় এখনও কাউকে ধরতে পারে নি স্থানীয় পুলিশ ।

গোয়াদারে জিন্নাহর মূর্তি : বিস্ফোরণের আগে। ছবি ট্যুইটার থেকে প্রাপ্ত।

মহম্মদ আলি জিন্নাহর মূর্তি বালুচদের হাতে বিধ্বস্ত হ‌ওয়ার পাকিস্তান জুড়ে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হলেও খুশির হাওয়া বালুচিস্তানে । সামাজিক মাধ্যমে নিজেদের খুশি খুল্লামখুল্লা প্রকাশ করতে দেরি করে নি বালুচরা । বালুচদের সাফ কথা , জিন্নাহকে নিজেদের নেতা বলেই মনে করে না তারা । পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকেই বালুচিস্তান অগ্নিগর্ভ । পাকিস্তানের অধীনতা থেকে মুক্তি চায় বালুচরা । পাকিস্তানের হাত থেকে মুক্তি পেতে প্রায় সত্তর বছর যাবৎ সশস্ত্র সংগ্রাম চালিয়ে আসছে বালুচিস্তান লিবারেশন আর্মি সহ বিভিন্ন সংগঠন । বিদ্রোহ দমন করতে গোটা বালুচিস্তান প্রদেশ সেনাবাহিনীর হাতে ছেড়ে রেখেছে পাকিস্তান সরকার । গণহত্যা , অপহরণ , নির্যাতন এবং ধর্ষণ সেখানে প্রতিদিনের ঘটনা ।

জিন্নাহকে তাদের সকল দুর্দশার কারণ বলে মনে করে বালুচরা।

মহম্মদ আলি জিন্নাহকে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের দালাল বলে মনে করে বালুচ লিবারেশন আর্মি । জিন্নাহর কারণেই দেশভাগ এবং পাকিস্তানের সৃষ্টি বলে মনে করেন বালুচ জাতিগোষ্ঠীর মানুষ । পাকিস্তানকে নিজেদের দুর্ভাগ্যের একমাত্র কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে বালুচরা । তাই জিন্নাহর মূর্তি ধূলিসাৎ হ‌ওয়ায় বালুচিস্তানের ঘরে ঘরে চাপা উল্লাস । ইউরোপ-আমেরিকায় রাজনৈতিক আশ্রয় নেওয়া বালুচরাও ঘটনায় উল্লসিত ।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *