মামলাকারী অনুপস্থিত , নন্দীগ্রামের ফলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মমতার দায়ের করা মামলার শুনানি পিছিয়ে গেল এক সপ্তাহ


নন্দীগ্রাম ইলেকশন পিটিশনের শুনানি ২৪ জুন

কলকাতা : শুনানিতে অনুপস্থিত মামলাকারী । এই কারণে নন্দীগ্রাম বিধানসভা আসনের ফলকে চ্যালেঞ্জ করে দায়ের হ‌ওয়া মামলা শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি কৌশিক চন্দের বেঞ্চে ওঠা মাত্রই শুনানি পিছিয়ে দিলেন বিচারপতি । আগামী ২৪ জুন মামলাটির পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছেন বিচারপতি কৌশিক চন্দ । জন প্রতিনিধি আইন অনুযায়ী ভোটের রেজাল্ট নিয়ে যেকোনও ধরণের মামলার শুনানির সময় মামলাকারীকে আদালতে উপস্থিত থাকতে হয় । এই মামলার আবেদনকারী মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং ।

বৃহস্পতিবার‌ ছিল ভোটের ফল নিয়ে আদালতে ইলেকশন পিটিশন করার শেষ দিন । নিয়ম অনুযায়ী ফল প্রকাশের দেড় মাসের মধ্যে ফলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মামলা করতে হয় ।‌ মে নন্দীগ্রামে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর ১৯০০র বেশি ভোটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পরাজিত করেন বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী । যদিও প্রথমে খবর রটে শুভেন্দুকে ১২০০ ভোটে পরাস্ত করেছেন মমতা । কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই খবর আসে শুভেন্দু অধিকারীই ১৯০০র কিছু ভোটে মমতাকে হারিয়ে দিয়েছেন । শুভেন্দুর জয়ী হয়েছেন , এটা শোনার পরেই গণনায় কারচুপির অভিযোগ তোলেন তৃণমূল সুপ্রিমো । তৃণমূলের তরফ থেকে নির্বাচন কমিশনের কাছে নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রের ফল ঘোষণা স্থগিত রেখে পুনর্গণনার দাবি জানানো হয় । যদিও তৃণমূলের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গণনা প্রক্রিয়া খতিয়ে দেখার পর কোনও গরমিল পায় নি কমিশন । সার্ভারের গন্ডোগোলে প্রথমে ভুল সংবাদ পরিবেশিত হয়েছিল বলে জানায় কমিশন। নির্বাচন কমিশনের কাছ থেকে সবুজ সঙ্কেত মিলতেই শুভেন্দু অধিকারীকেই বিজয়ী ঘোষণা করে জয়ের শংসাপত্র তুলে দেন রিটার্নিং অফিসার ।

নির্বাচন কমিশন শুভেন্দু অধিকারীকে বিজয়ী ঘোষণা করলেও তা মেনে নিতে পারেন নি তৃণমূল সুপ্রিমো । গণনার রাতেই নন্দীগ্রামের ফলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে আদালতে যাওয়ার কথা জানিয়ে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । এ নিয়ে আদালতে মামলা করার শেষ দিন বৃহস্পতিবার কলকাতা হাইকোর্টে ইলেকশন পিটিশন দায়ের করলে বিচারপতি কৌশিক চন্দের বেঞ্চে মামলাটিকে পাঠানো হয় । শুক্রবার ছিল মামলার প্রথম শুনানির দিন । বেলা ১১টা নাগাদ শুনানি শুরু হলে মামলাকারীর খোঁজ করেন বিচারপতি । মুখ্যমন্ত্রী আদালতে উপস্থিত নেই দেখে তাঁর আইনজীবীর কাছে বিষয়টি জানতে চান তিনি । জন প্রতিনিধি আইন অনুযায়ী এই ধরণের মামলায় আবেদনকারিকে শুনানির সময় আদালতে উপস্থিত থাকার নিয়ম । যা নিয়ম আছে তাই মানতে হবে । কাজেই শুনানি এক সপ্তাহ পিছিয়ে দেন বিচারপতি । ফের শুনানির জন্য মামলাটি উঠবে ২৪ জুন বৃহস্পতিবার । সেদিন মুখ্যমন্ত্রী আদালতে উপস্থিত থাকতে পারেন কিনা দেখা যাক ।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *