স্কুলে গুলি চালিয়ে তিনজনকে ঘায়েল করল ক্লাস সিক্সের ছাত্রী !



ইন্টারন্যাশানাল ডেস্ক : সিক্সের ছাত্রী । ক্লাসে বন্দুক চালিয়ে জখম করল দুই সহপাঠী আর স্কুলের এক সহকর্মীকে ! আমেরিকার ইদাহো রাজ্যের জেফারসন কাউন্টির রিগবি শহরের ঘটনা । বাড়ি থেকে ব‌ইয়ের ব্যাগে লুকিয়ে বন্দুক এনেছিল ছাত্রীটি । বৃহস্পতিবার সকাল নটা নাগাদ , ইস্টার্ন ইদাহোর  রিগবি মিডল স্কুলের ওই ছাত্রী ক্লাসরুমের ভেতর আচমকাই ব্যাগ থেকে বন্দুক বের করে গুলি চালাতে চালাতে বাইরে বেরিয়ে আসে । এক শিক্ষিকা ছাত্রীটির কাছ থেকে বন্দুকটি ছিনিয়ে নিয়ে তাকে কব্জা করে ফেলে । ততক্ষণে অবশ্য দুই ছাত্র ও একজন স্কুলকর্মী গুলিবিদ্ধ । গুলিতে আহত তিনজনের কারোর‌ই আঘাত গুরুতর নয় বলে জানা গেছে। গুলি চলার সময় রিগবি মিডল স্কুলের সমস্ত ছাত্রছাত্রীকে পাশে পাশের হাই স্কুলে দ্রুত সরিয়ে নেওয়া হয় । সেখানে একটি জিমনাসিয়ামে হলে আশ্রয় নেয় পড়ুয়ারা । 

ছাত্রীটিকে গ্রেফতার করলেও তার নাম প্রকাশ করে নি রিগবি পুলিশ । সিক্স স্ট্যান্ডার্ডের‌ একজন ছাত্রী কেন স্কুলে গুলি চালিয়ে তিনজনকে ‌জখম করল জানতে স্থানীয় ও রাজ্য পুলিশের পাশাপাশি তদন্তে নেমেছে এফবিআই‌ও । পশ্চিম আমেরিকার ইদাহো প্রদেশের জেফারসন কাউন্টির একটি ছোট্ট শহরের নাম রিগবি। ইদাহো রাজ্যের ইতিহাসে স্কুলে গুলি চালানোর এটি দ্বিতীয় ঘটনা । যদিও স্কুল চত্ত্বরে শুট‌আউটের ঘটনা আমেরিকায় নতুন কিছু নয় । ২০০৯ থেকে ২০১৯ এর মধ্যে স্কুলে গুলির ঘটনা ঘটেছে ১৮০টি ২০২০তে আমেরিকা জুড়ে স্কুলে বন্দুক চালানোর ১০টি ঘটনা ঘটেছে । একুশে রিগবি মিডল স্কুলের ঘটনা সহ ছটি স্কুল শুট‌আউটের ঘটনা ঘটল এখনও পর্যন্ত । ঘটনার পর পরই ট্যুইট করে নিজের উদ্বেগ ব্যক্ত করেছেন ইদাহোর গভর্নর ব্র্যাড লিটল । ঘটনা বেশি দূর না গড়াতে দেওয়ায় স্কুল কর্তৃপক্ষ ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের ধন্যবাদ দিয়েছেন গভর্নর ।

ইদাহোর গভর্নরের ট্যুইট ।

আমেরিকান সমাজে আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার জলভাত । মার্কিন সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনীতে আগ্নেয়াস্ত্র রাখা নাগরিকদের জন্য মৌলিক অধিকার হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে । একটি পরিসংখ্যান থেকে দেখা গেছে , বছরে গড়ে ৩৯ হাজার আমেরিকান নাগরিক গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান । আগ্নেয়াস্ত্র রাখার অবাধ অধিকার খর্ব করতে একাধিকবার চেষ্টা করেও তেমন সুবিধা করতে পারে নি মার্কিন প্রশাসন । অভিভাবকদের হেফাজতে থাকা বন্দুক লুকিয়ে স্কুলে এনে গুলি চালিয়ে দেয় ছাত্র-ছাত্রীরাও । বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সহপাঠীর ওপর আক্রোশ মেটাতেই পড়ুয়ারা বন্দুক ব্যবহার করে বলে জানতে পেরেছেন গবেষকেরা । ক্লাসে অপমানের শিকার হতে হতেও অনেক সময় ক্ষুব্ধ ছাত্রছাত্রীরা এই ধরণের কান্ড ঘটিয়ে ফেলে অনুসন্ধান করতে গিয়ে দেখেছেন তদন্তকারী আধিকারিকেরা ।


Picture Credits – Twitter 



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *