অসমের আশ্রয় শিবিরে বাংলার রাজ্যপাল , ঘরছাড়াদের রাজ্যে ফিরে আসার আবেদন ধনখড়ের


১৪ মে,২০২১ : অসমে আশ্রয় নেওয়া পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দাদের রাজ্যে ফিরে আসতে আবেদন জানালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় । বিধানসভা ভোটের ফল প্রকাশের পর কোচবিহার জেলার তুফানগঞ্জ এলাকার অসংখ্য বিজেপি কর্মী-সমর্থক রাজনৈতিক হিংসার শিকার হয়ে পাশের অসম রাজ্যে আশ্রয় নিয়েছে বলে অভিযোগ । অসমের শ্রীরামপুর জেলার রণপাগলিতে ত্রাণশিবির খুলে আক্রান্তদের আশ্রয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে । বৃহস্পতিবার কোচবিহারের মাথাভাঙ্গা , সিতাই সহ রাজনৈতিক হিংসা কবলিত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেন রাজ্যপাল । শুক্রবার পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচী অনুযায়ী অসমের ত্রাণ শিবিরে যান ধনখড় । আবহাওয়া খারাপ থাকার হেলিকপ্টার উড়তে না পারলেও সফর বাতিল করেন নি রাজ্যপাল । কোচবিহার থেকে সড়কপথে‌ই অসমের শ্রীরামপুরে পৌঁছান তিনি। সকাল সোয়া নটা নাগাদ রণপাগলির শিবিরে পৌঁছে সেখান আশ্রয় নেওয়া আক্রান্তদের সঙ্গে কথা বলেন জগদীপ ধনখড় । তাদের ঘরে ফিরে আসতে অনুরোধ করেন তিনি । ফিরে এলে গ্রামবাসীদের নিরাপত্তা দিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার‌ও আশ্বাস দেন রাজ্যপাল । রাজ্যপালের সঙ্গে ছিলেন কোচবিহারের সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক , কোচবিহার জেলা বিজেপির সভানেত্রী ও তুফানগঞ্জের বিধায়ক মালতী রাভা সহ অন্যান্যরা।

অসমের ত্রাণশিবিরে বাংলার আক্রান্তদের সঙ্গে কথা বলছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় ।

 

রাজ্যপালের কোচবিহার সফর নিয়ে নবান্ন-রাজভবন তরজা তুঙ্গে । মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রবল আপত্তিকে অগ্রাহ্য করেই কোচবিহার সফরে আসেন ধনখড় ।‌ কোচবিহারের রাজনৈতিক হিংসা বিধ্বস্ত কয়েকটি এলাকা পরিদর্শনের পর প্রশাসনের তীব্র সমালোচনা করেন তিনি । হিংসার দৃশ্য চোখে দেখা যায় না বলে মন্তব্য করেন রাজ্যপাল । ভোট পরবর্তী হিংসা দেখে জগদীশ ধনখড়ের মনে হয়েছে রাজ্যে  আইনের শাসন ভেঙে পড়েছে । শুক্রবার অসমের আশ্রয় শিবির পরিদর্শন শেষেও ট্যুইটার ও সংবাদ মাধ্যমের সামনে রাজ্য প্রশাসনের খুল্লামখুল্লা সমালোচনা করলেন পশ্চিমবঙ্গের সাংবিধানিক প্রধান । 


রাজ্যপালের ট্যুইট ।

শুক্রবার রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় অভিযোগ করেন, পশ্চিমবঙ্গের প্রশাসন সাধারণ মানুষের জীবনরক্ষা করে না ।‌ প্রাণের ভয়ে মানুষ বাংলা ছেড়ে অন্য রাজ্যে আশ্রয় নেয় । সরকারের জন্য এটা লজ্জার । রাজ্যপাল হিসেবে এই লজ্জা তাঁর‌ও বলে মনে করেন জগদীপ ধনখড়। সফরকালে কোচবিহারের জেলাশাসক ও পুলিশ সুপার সহযোগিতা করে নি বলে নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে অভিযোগ করেন ধনখড় । মমতাকে সংঘর্ষাত্মক নীতি ত্যাগ করে সহযোগিতা ও সাংবিধানিক পথ গ্রহণের আবেদন জানিয়ে রাজ্যপাল বলেন, একমাত্র এইভাবেই রাজ্যে গণতন্ত্র বিকাশের পাশাপাশি আইনের শাসন বলবৎ ও জনগণের সেবা সম্ভব ।  

রাজ্যপালের কোচবিহার ও অসম সফরের বিরোধিতা করে তীব্র প্রতিক্রিয়া দিয়েছে তৃণমূল শিবির। বৃহস্পতিবার কোচবিহারের কয়েক জায়গায় রাজ্যপালকে বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূলের কর্মীসমর্থকেরা । শুক্রবার রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের পদত্যাগ দাবি করেছেন তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব । 


ছবি- নিজস্ব ।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *