দল ছাড়তেই চক্ষুশূল রাজীব ! আলিপুরদুয়ারে প্রকাশ্য সভায় প্রাক্তন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে সরব মুখ্যমন্ত্রী - nagariknewz.com

দল ছাড়তেই চক্ষুশূল রাজীব ! আলিপুরদুয়ারে প্রকাশ্য সভায় প্রাক্তন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে সরব মুখ্যমন্ত্রী


নাগরিক নিউস পলিটিক্যাল ডেস্ক : বুধবার আলিপুরদুয়ার প্যারেড গ্রাউন্ডের দলীয় কর্মীসভা থেকে সদ্য  দলছুট প্রাক্তন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে সরাসরি দুর্নীতির অভিযোগ আনলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী । রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বনমন্ত্রী থেকে পদত্যাগ করে মাত্র চারদিন আগে দিল্লিতে গিয়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন অমিত শাহের হাত ধরে ।  এদিন মঞ্চে দাঁড়িয়ে নাম না করে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বন সহায়ক পদে নিয়োগ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ আনলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । এই দুর্নীতির তদন্ত হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী । মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘ আমি জানি যে ছেলেটা আমাদের থেকে চলে গেছে , যে ছেলেটা আমাদের সঙ্গেই ছিল কিন্তু এখন চলে গেছে , বন সহায়ক পদ নিয়ে ও কিছু কারসাজি করেছে । অনেক লোক এই কমপ্লেন আমার কাছে করেছে । আমরা এটার তদন্ত করছি । ‘ আগামী চার-পাঁচ দিনের ভেতর  নির্বাচনের দিন ঘোষণা হয়ে যাবে বলে  এখন‌ই কোন পদক্ষেপ না নিতে পারলেও তদন্ত চলবে এবং নির্বাচনের পর যারা যারা নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতির কারণে চাকরি থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তাদের চাকরির বিষয়টি পুনর্বিবেচনা  করবে সরকার – আলিপুরদুয়ারের সভা থেকে এমনটাই জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । তৃণমূল সুপ্রিমো রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে বলেন, ও লেড়কা যো বহুত বড় বড় বাত করতা হ্যায় বাহার মে যাকে , আব বন সহায়ক অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেকে কেয়া কিয়া পহেলে পুছিয়ে । চুরি করকে বিজেপিকা পকেট মে চলা গিয়া । ‘ ‌

আলিপুরদুয়ারের সভা থেকে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আনলেন মুুখ্যমন্ত্রী

মমতার অভিযোগ কানে যাওয়া মাত্রই কড়া প্রতিক্রিয়া দিতে দেরি করেন নি রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়‌ও। হুগলির গুড়াপে বিজেপির সভায় দাঁড়িয়ে পাল্টা হুঙ্কার দিয়ে প্রাক্তন বনমন্ত্রী বলেন, ‘ কেঁচো খুঁড়তে কেউটে বেরিয়ে পড়বে । তৃণমূলের কোন কোন নেতা ওই পদে নিজেদের লোকের নিয়োগ দাবি করে আমার কাছে সুপারিশ করেছিলেন তার সব প্রমাণ হাতে রয়েছে ।’ বন সহায়ক পদে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা চেয়েছিলেন বলেই তিনি বোর্ডের ‌হাতে সেই দায়িত্ব তুলে দিয়েছিলেন বলে দাবি করেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় । 

মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ কানে যেতেই পাল্টা দিতে দেরি করেন নি প্রাক্তন বনমন্ত্রী

উত্তরবঙ্গ থেকে কার্যত ভোটের প্রচার শুরু করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গ জুড়েই শোচনীয় ফল হয়েছে তৃণমূলের । সেই কথা মাথায় রেখে বহু আগে থেকেই ঘুঁটি সাজিয়ে চলেছে তৃণমূল। বুধবার আলিপুরদুয়ারের সভা থেকে বহু জনজাতি অধ্যুষিত ডুয়ার্সে বিভিন্ন বর্গের মানুষের মন কাড়তে চেষ্টার ত্রুটি রাখেন নি তৃণমূল সুপ্রিমো । গত দশ বছরে আলিপুরদুয়ার সহ গোটা উত্তরবঙ্গের উন্নয়নে তাঁর সরকার কী কী কাজ করেছে মঞ্চে দাঁড়িয়ে তার বিস্তারিত খতিয়ান তুলে ধরেন মুখ্যমন্ত্রী । এর পাশাপাশি তিনি  চাঁচাছোলা ভাষায় বিজেপিকে কটাক্ষ করেছেন যথারীতি । রোজ‌ই তৃণমূল ভাঙিয়ে কাউকে না কাউকে দলে নিচ্ছে বিজেপি । এ নিয়ে কটাক্ষ ছুঁড়ে দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘ যারা লোভী এবং যারা ভোগী আমরা তাড়াবার আগেই তারা দল থেকে চলে গেছে বিজেপিতে ভোগ করার জন্য ।  যারা লোভী , ভোগী তাদের জন্য রাস্তা খোলা । চলে যান । তৃণমূলে লোভীদের জায়গা নেই ।‘ মমতা দাবি করেন, ‘ টাকা দিয়ে তৃণমূলের টিকিট কেনা যায় না । যারা পাঁচ বছর মানুষের সঙ্গে থাকে , ভালো কাজ করে তারা এমনিতেই টিকিট পাবে , দল তাদের খুঁজে নেবে ।’ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, ‘ বিজেপি দলটা লোভে ভরে গেছে । ভোগে ভরে গেছে । পচে গেছে পুরো দাঙ্গা করে করে ‌। ‘ 

আলিপুরদুয়ারে দলের কর্মীসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
তৃণমূল ছেড়ে যারা বিজেপিতে গেছেন তাদের এখন প্রকাশ্যে চোর , গুন্ডা বলতেও  ছাড়ছেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজনৈতিক মহলের ধারণা ভোটের দিন যত এগিয়ে আসবে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে তত‌ই কথার ঝাঁঝ বাড়িয়ে তুলবেন তৃণমূল নেত্রী। আর এ ক্ষেত্রে সদ্য দলত্যাগী দুই হেভিওয়েট‌ই যে তৃণমূল সুপ্রিমোর সর্বাধিক টার্গেট হবেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না । বিধানসভা ভোটের লড়াইটা মমতা-অভিষেক বনাম শুভেন্দু-রাজীব পাল্টাপাল্টি লড়াইয়ে সরগরম হয়ে উঠবে বলেই রাজনৈতিক মহলের পর্যবেক্ষণ । 

                              ভিডিওতে দেখুন –
         




Leave a Reply

Your email address will not be published.