দ্বিতীয় দফা আলোচনা শেষে ১৯৩ আসনে সমঝোতা চূড়ান্ত করল বাম-কংগ্রেস জোট , ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহের মধ্যেই বাকি আসনে রফা হয়ে যাবে বলে আশাবাদী জোট নেতৃত্ব


নাগরিক পলিটিক্যাল ডেস্ক : দু’দফায় আলোচনায় বসে ১৯৩ টি আসনে রফা চূড়ান্ত করতে পারল বাম-কংগ্রেস জোট । বৃহস্পতিবার আসন সমঝোতা পাকা করতে ‌কলকাতায় প্রদেশ কংগ্রেস দফতর বিধান ভবনে বৈঠকে বসেন বাম- কংগ্রেস নেতৃত্ব । বামেদের তরফে বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু এবং সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র এবং কংগ্রেসের তরফে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী ‌, বিধানসভার বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান এবং প্রদীপ ভট্টাচার্য বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। আগের বৈঠকে ৭৭টি আসনে রফা চূড়ান্ত হয়েছিল । এই ‌৭৭টিই ষোলোর বিধানসভা নির্বাচনে জোটের জেতা আসন । ৭৭টির মধ্যে ৪৪টিতে কংগ্রেস ও ৩৩টিতে বামেদের প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এদিনের বৈঠকে আরও ১১৬টি আসনে সমঝোতা চূড়ান্ত করলেন জোটের নেতারা । এই ১১৬র মধ্যে ৬৮টিতে বামেরা এবং ৪৮টিতে কংগ্রেস প্রার্থী দেবে বলে ঠিক হয়েছে । দু’ দফায় চূড়ান্ত ১৯৩ টি আসনের মধ্যে বামেরা ১০১ এবং কংগ্রেস ৯২টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে । বৈঠক শেষে যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে ১৯৩ টি আসনে সমঝোতার কথা জানান বাম-কংগ্রেসের নেতারা । 

সাংবাদিক সম্মেলনে অধীর চৌধুরী ও বিমান বসু। পাশে সূর্যকান্ত মিশ্র

বৃহস্পতিবারের পরেও সমঝোতা ঝুলে রইল আরও ১০১টি আসনে । আসন ভাগাভাগি নিয়ে বৈঠক সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে হয়েছে বলে ‌সাংবাদিক সম্মেলনে দাবি করেন বিমান বসু এবং অধীর চৌধুরী দু’জনেই । ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহের মধ্যেই আসন ভাগাভাগি চূড়ান্ত হয়ে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন বিমানবাবু । ভোটের আগে ২৮ ফেব্রুয়ারি ব্রিগেডে বাম-কংগ্রেসের যৌথ সমাবেশের কথাও বৈঠক থেকে ঘোষণা করা হয় । পশ্চিমবঙ্গের ইতিহাসে এই প্রথম ব্রিগেডে বাম ও কংগ্রেস একসঙ্গে সভা করতে চলেছে ।

ব্রিগেড সমাবেশের দেওয়াল লিখন শুরু করে দিয়েছে সিপিএম

বৈঠকে বিমান বসু বলেন , ‘ সারা দেশে বিজেপি মূল প্রতিপক্ষ হলেও পশ্চিমবঙ্গে বিজেপিকে হটাতে গেলে তৃণমূলকে আগে গদিচ্যুত করা প্রয়োজন । ‘  তৃণমূল ও বিজেপি বিরোধী যেকোনও দলকেই সঙ্গে নিতে বাম-কংগ্রেস জোটের অসুবিধা নেই বলেও জানান বিমানবাবু । বামফ্রন্ট চেয়ারম্যানের এই বক্তব্যকে ইঙ্গিতপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল । দিন কয়েক আগেই রাজনৈতিক দল গঠন করেছেন ফুরফুরা শরিফের পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকি । দল গঠনের আগে থেকেই আব্বাস সিদ্দিকির সঙ্গে বাম ও কংগ্রেসের নেতারা কথা চালাচালি করছেন । এখন আব্বাস সিদ্দিকির সদ্য গঠিত দল ইন্ডিয়ান সেক্যুলার ফ্রন্ট‌ও জোটের ছত্রতলে আসে কিনা এই দিকেই লক্ষ্য রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের । 

সামাজিক মাধ্যমে ব্রিগেড মিটিংয়ের প্রচার । এই প্রথম ব্রিগেডে এক মঞ্চে বাম-কংগ্রেস

এখনও পর্যন্ত আসন সমঝোতা নিয়ে জোটের আলোচনা ‌সুষ্ঠুভাবে চলছে বলেই মনে করেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী । তৃণমূল ও বিজেপির বিকল্প তৃতীয় শক্তি হিসেবে নিজেদের জনগণের কাছে বিশ্বাসযোগ্য করে তোলাই জোটের লক্ষ্য বলে যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে দাবি করেছেন অধীরবাবু । তৃণমূল আর বিজেপি এক‌ই মুদ্রার দুই পিঠ ‌বলে কটাক্ষ করেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি । অধীর চৌধুরীর ভাষায় – এক‌ই বৃন্তে দুটি ফুল ঘাসফুল ‌আর পদ্মফুল । 


Leave a Reply

Your email address will not be published.