মালবাজারে গুলিবিদ্ধ আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের সহকারী সভাধিপতি || বিজেপির দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে রাস্তায় তৃণমূল || আলিপুরদুয়ারের বিজেপি নেতারা জেলা ছাড়া হবেন বলে হুঁশিয়ারি সৈকত চট্টোপাধ্যায়ের || হুঁশিয়ারি আমল‌ই দিলেন না যুবমোর্চার জেলা সভাপতি


প্রদ্যুত দাস ,জলপাইগুড়ি,২৬ জানুয়ারি : আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের সহকারী সভাধিপতি মনোরঞ্জন দের ওপর হামলার ঘটনায় সরাসরি বিজেপির দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে পথে তৃণমূল । যদিও এই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছেন বিজেপি নেতৃত্ব । বিজেপির পাল্টা অভিযোগ, নিজেদের মধ্যে গোষ্ঠী কোন্দলের জেরেই আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারেন ওই তৃণমূল নেতা  

ঘটনার প্রতিবাদে  আলিপুরদুয়ারে তৃণমূলের মিছিল

পারিবারিক কাজ সেরে শিলিগুড়ি থেকে ফেরার পথে বৃহস্পতিবার রাত দুটো নাগাদ মালবাজার এলাকায় মনোরঞ্জনবাবু দুষ্কৃতীদের হাতে আক্রান্ত হন বলে জানা গেছে । দুষ্কৃতীরা গুলি চালালে তৃণমূল নেতার পায়ে গুলি লাগে । বর্তমানে তিনি শিলিগুড়ির একটি বেসরকারি ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন । কে বা কারা আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের সহকারী সভাধিপতি এবং আলিপুরদুয়ার এক নম্বর ব্লক তৃণমূলের সভাপতি মনোরঞ্জন দের ওপর হামলা চালিয়েছে এই ব্যাপারে  এখনও পর্যন্ত পুলিশের কাছ থেকে বিস্তারিত কিছুই জানা যায় নি । তবে পুলিশের তদন্তের অপেক্ষায় না থেকে মাঠে নেমে গেছে তৃণমূল । জলপাইগুড়ি ও আলিপুরদুয়ার জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের অভিযোগের আঙুল বিজেপির দিকে । শনিবার ঘটনার প্রতিবাদে আলিপুরদুয়ারে বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তীর নেতৃত্বে  মিছিল করেছে তৃণমূল । জলপাইগুড়িতেও  সকালে রংধামালি মোড়ে বিক্ষোভ দেখান তৃণমূল কর্মী-সমর্থকেরা । বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের গুলিতেই  দলের নেতা আহত হয়েছেন বলে বিক্ষোভ থেকে অভিযোগ করেন তৃণমূলের নেতারা । 

ঘটনার প্রতিবাদে  জলপাইগুড়িতে   তৃণমূলের বিক্ষোভ

এদিন শহরের ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে বঙ্গধ্বনি যাত্রায় সামিল হয়ে এক‌ই অভিযোগ তোলেন জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি সৈকত চট্টোপাধ্যায়‌ও । পথসভায় বক্তৃতা দেবার সময় সৈকতবাবু বলেন, ‘মনোরঞ্জন দে সুস্থ হয়ে আসবে । আলিপুরদুয়ারে ফিরবে । আর বিজেপির নেতারা সব আলিপুরদুয়ার ছেড়ে অন্য কোথাও যাবে । এটাই ভবিতব্য । গুলি গোলা চালিও না । গুলি চালালে তৃণমূল রসগোল্লা ছুঁড়বে না ।’ 

দলের নেতা গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনায় বিজেপিকে  হুঁশিয়ারি সৈকত চ্যাটার্জির

যদিও জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেস সভাপতির হুঁশিয়ারিকে আমল দিতে নারাজ জেলা যুব মোর্চার সভাপতি পলেন ঘোষ ।  দলের গোষ্ঠী কোন্দলের জেরেই মনোরঞ্জন দে আক্রান্ত হয়েছেন – পাল্টা এই অভিযোগ করে যুব মোর্চার জেলা সভাপতির কটাক্ষ, রসগোল্লা ছুঁড়তে হলে তো নিজেদের দলের লোকদের ওপরেই ছুঁড়তে হবে। গুলি চালিয়েছে ওদের দলের‌ই লোক । বিজেপি কোন‌ও দিন গুলি- সন্ত্রাসের সঙ্গে যুক্ত ছিল না । কোনও দিন থাকবেও না । ‘ পলেন ঘোষ আরও বলেন, ‘ আমরা বাংলায় আসার পর এ গুলো সব নির্মূল হয়ে যাবে । তৃণমূলের যারা সন্ত্রাসবাদী আছে তারা সব ঘরে ঢুকে যাবে । দু’চারজন যারা থাকবে তারা রাজ্য ছেড়ে পালিয়ে যাবে । ‘ তৃণমূলের নেতারা বিজেপির সঙ্গে যুক্ত হ‌ওয়ার জন্য সব লাইন দিয়ে কলকাতা , দিল্লি দৌড়াচ্ছে বলেও কটাক্ষ করতে ছাড়েন নি  যুবমোর্চার জেলা সভাপতি । আলিপুরদুয়ারের তৃণমূল নেতার গুলিবিদ্ধ হ‌ওয়ার ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করেছেন তিনি। বিজেপির যুবনেতা বলেন, ‘ ঘটনার তদন্ত হোক । সরকার , প্রশাসন সব‌ই তো ওনাদের হাতে । ‘ সেইসঙ্গে যুবমোর্চা সভাপতির কটাক্ষ, ‘ পুলিশ ঠিক করে তদন্ত করতেও পারবে না। করলেই তৃণমূলের নিজেদের লোকের নাম চলে আসবে। গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে চলে আসবে ।’

সৈকত চ্যাটার্জিকে  কটাক্ষ জেলা যুবমোর্চা সভাপতি পলেন ঘোষের

ভিডিওতে দেখুন দুই যুব নেতার পাল্টাপাল্টি –


Leave a Reply

Your email address will not be published.